মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৩ এপ্রিল ২০১৬

ঢাকায় সার্কভুক্ত দেশসমূহের কৃষিমন্ত্রীদের তৃতীয় সভা অনুষ্ঠিত


প্রকাশন তারিখ : 2016-04-13

গত ৭-৪-১৬ তারিখ ঢাকায় সার্কভুক্ত সদস্য দেশসমূহের কৃষি মন্ত্রীদের তৃতীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্বাগতিক রাষ্ট্রের মাননীয় কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এমপি সভায় সভাপতিত্ব করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ সভা উদ্বোধন করেছেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ এশিয়ার জনগণের দারিদ্র ও ক্ষুধা দূরীকরণের এবং খাদ্য-পুষ্টির নিরাপত্তা বিধানের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এর আগে ৬ এপ্রিল ২০১৬ সার্কের কৃষি সচিবদের সভা বাংলাদেশের কৃষি সচিব জনাব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ্ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া ৪ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. আবুল কালাম আযাদ-এর সভাপতিত্বে একটি মাল্টিস্টেকহোল্ডার ডায়লগ এবং ৪-৫ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জনাব মোহাম্মদ নজমুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে সার্কের কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক কমিটির ৮ম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রায় আট বছর পর সার্কের কৃষি মন্ত্রীদের এই সভা অনুষ্ঠিত হলো। ভারতের কৃষি এবং কৃষক কল্যাণ বিষয়ক মন্ত্রী শ্রী রাধা মোহন সিং, নেপালের কৃষি উন্নয়ন মন্ত্রী জনাব হরিবোল গাজুরেল, পাকিস্থানের জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তা ও গবেষণা বিষয়ক মন্ত্রী জনাব সিকান্দার হায়াত খান বোসান এবং ভূটানের কৃষি মন্ত্রী ইয়েসেই দর্জি এবং আফগানিস্থান, মালদ্বীপ এবং শ্রীলঙ্কার পক্ষে বিভিন্ন পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ সভায় অংশ নেন।

কৃষি মন্ত্রীদের সভায় Dhaka Statement on Agriculture and Rural Development গৃহীত হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ এই Vision Document-টিতে ১২টি ধারা রয়েছে যা দক্ষিণ এশিয়ায় টেকসই কৃষি ব্যবস্থা, খাদ্য নিরাপত্তা, অধিকতর পুষ্টি নিশ্চিতকরণ এবং ক্ষুধা ও অতি দারিদ্র দূরীকরণে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে মাননীয় কৃষিমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেছেন।

ঢাকা স্টেটমেন্টে সন্নিবেশিত বিষয়গুলো হলোঃ-

১। আমাদের কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক আঞ্চলিক সহযোগিতা আরও জোরদার ও টেকসই করতে হবে;

২। ‘সার্ক ডেভেলপমেন্ট ফান্ড’ এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় পল্লী উন্নয়নে উপযুক্ত আঞ্চলিক প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে;

৩। কৃষি বাণিজ্যের প্রতিবন্ধকতাগুলো চিহ্নিত এবং দূরীভূত করতে হবে;

৪। কৃষি বাণিজ্যের নন-ট্যারিফ বাধাগুলোর বিষয়ে যথাযথ দৃষ্টি দিতে হবে;

৫। প্রাণিসম্পদের উন্নয়নে Food and Agricultural Organization of the United Nations (FAO) এবং World Organization for Animal Health (OIE) এর সাথে সার্কের বর্তমান সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। সেইসাথে সার্কের প্রাণিসম্পদ সংক্রামত্ম Regional Support Unit (RSU) এবং Regional Epidemiology Centre (REC) এর কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে;

৬। জাতিসংঘের বিশেষায়িত সংস্থাগুলো, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাসমূহের সাথে অংশীদারিত্ব অব্যাহত থাকবে এবং আরো সুসংহত করতে হবে;

৭। সার্ক কৃষি কেন্দ্র (SAC) কে একটি ‘Centre of Excellence’-এ পরিণত করা হবে যাতে কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বৈজ্ঞানিক অগ্রগতি অর্জন করা যায়;

৮। কৃষি কেন্দ্র এবং কৃষি বিজ্ঞানীদের আঞ্চলিক একটি Consortium-এর মাধ্যমে আরো বেশি পরিমাণে গবেষণা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে;

৯। SAARC Seed Bank এবং Livestock Gene Bank-এর মাধ্যমে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে উচ্চ মানসম্পন্ন Germplasm-এর অধিকতর বিনিময় নিশ্চিত করা হবে;

১০। SAARC Food Bank-কে কার্যকর করে তোলা হবে। এ ব্যাপারে UNESCAP এর পাশাপাশি বিশেষায়িত সংস্থাসমূহের সহায়তা নেয়া হবে;

১১। দক্ষিণ এশিয়াতে Agro-processing এবং দক্ষিণ এশিয়ায় ও দক্ষিণ এশিয়ার বাইরে প্রক্রিয়াজাতকৃত কৃষি পণ্যের যথাযথ বাজার খুঁজে বের করতে সার্ক সচিবালয়, আন্তর্জাতিক এবং আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠানসমূহের সাথে অংশীদারিত্ব জোরদার করবে; এবং

১২। সার্ক কৃষি কেন্দ্র এ অঞ্চলে কৃষক, কৃষিবিজ্ঞানী এবং সম্প্রসারণকর্মীদের অভিজ্ঞতা ও সফর বিনিময়ে সহায়তা করবে।

এছাড়াও এ সভাসমূহে টেকসই কৃষি ব্যবস্থা এবং খাদ্য নিরাপত্তার বিষয়ে সার্কের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান এবং ফোরামসমূহের প্রাতিষ্ঠানিক, গবেষণা এবং অন্যান্য কার্যক্রম সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

  1. সভাতে সার্ক সচিবালয় কর্তৃক প্রকাশিত ‘A Guide to SAARC Food Bank’ এবং সার্ক কৃষি কেন্দ্র কর্তৃক প্রকাশিত তিনটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশনা উদ্বোধন করা হয়। যথা- (১)Water-Energy-Food Nexus, (২) ফ্লোরিকালচার, এবং (৩) Agro-Forestry বিষয়ক।

 

গত (চার) দিনের সভাসমূহে বাংলাদেশ নয়টি ‘Concept Note’, Success Story এবং Project Proposal উপস্থাপন করেছে। যেখানে কৃষিক্ষেত্রে আঞ্চলিক সহযোগিতার বিষয়ে বাংলাদেশের দৃঢ় অঙ্গীকারকেই পুনঃব্যক্ত করা হয়েছে। এ প্রস্তাবসমূহ সুবিধাজনকভাবে বাস্তবায়নযোগ্য প্রকল্পে পরিণত করতে সার্ক সচিবালয় কাজ করবে।

দক্ষিণ এশিয়ায় টেকসই কৃষি উন্নয়ন ও খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সার্ক কৃষি মন্ত্রিগণের এই সভা এবং ‘Dhaka Statement’ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।


Share with :